শীতে চুলের যত্ন নেয়ার উত্তম উপায়

সুন্দর ও ঝলমলে চুল প্রত্যেক নারীর স্বপ্ন। আর এই শীতে চুল সুন্দর ও ঝলমলে রাখতে বিশেষ কিছু যত্ন নেয়া প্রয়োজন। তাই চুলের যত্ন নিতে ছোট ছোট বিষয়ও মানতে হবে।

টিপস :

১। শীতকালের দিনের বেলা বাসা থেকে বের হলে মোটা স্কার্ফ নয় বরং হাল্কা স্কার্ফ ব্যবহার করুন যা সরাসরি রোদ থেকে আপনার চুলকে বাঁচাবে।

২। আমার যারা চুলে নানা রকম রং ব্যবহার করে থাকি, তারা শীতে চুলে রং করে থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ হেয়ার কালারে থাকা বিভিন্ন কেমিক্যাল চুলকে রুক্ষ করে তুলতে পারে। আর হেনা চুলের জন্য উপকারী হলেও শীতকালে হেনা ব্যবহার করাও ঠিক নয় কারণ হেনা আদ্রর্তা টেনে নিয়ে চুলকে শুষ্ক করে দেয়।

৩। শীতে চুলের সব চেয়ে জরুরী হলো কন্ডিশনিং। অনেকেই চুলে শ্যাম্পু করার পরে কন্ডিশনার ব্যবহার করেন না।এটি একদম ঠিক নয়। কারণ চুলের বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য এবং স্থায়িত্ব রক্ষার জন্য কন্ডিশনার অতি জরুরী। কাজেই শ্যাম্পু করার পরে অবশ্যই ভালো মানের কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।

৪। এই শীতে সপ্তাহে দু’-তিনবার ফিশ অয়েল ক্যাপসুল বা ভিটামিন-ই ক্যাপসুল খেতে পারেন।চুলে ঘন ঘন শ্যাম্পু করবেন না। এছাড়া বাইরে বের হলে চুলে যেন বেশি ধূলো-ময়লা না জমে সেদিকে খেয়াল রাখবেন । শ্যাম্পু করার আধা ঘণ্টা আগে চুলে একটি গরম তোয়ালে পেঁচিয়ে রাখুন। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন। ঘন ঘন শ্যাম্পু ও অতিরিক্ত রাসায়নিক উপাদান যুক্ত শ্যাম্পুর অধিক ব্যবহার চুলের জন্য ক্ষতিকর। অতিরিক্ত চুল ধোয়ার ফলে চুলের স্বাভাবিক তেল ( ন্যাচারাল অয়েল) নষ্ট হয়।

৫। ভেজা চুলে কখনোই চিরুনি ব্যবহার করবেন না। চুল শুকিয়ে গেলে চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ব্রাশ করুন। এক্ষেত্রে মোটা ব্রাশের চিরুনি ব্যবহার করুন। ভঙ্গুর, প্লাষ্টিকের তৈরি চিরুনি ব্যবহার না করাই ভালো। এতে মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে।

৬। সপ্তাহে অন্তত একদিন ডিপ কন্ডিশনিং মাস্ক বা কোনও ময়েশ্চারাইজ়িং হেয়ার প্যাক ব্যবহার করুন। চুলের ধরন বুঝে মাস্ক বা প্যাক ব্যবহার করতে পারেন।

৭। যাদের তৈলাক্ত চুল তারা অল্প তেল দিয়ে শ্যাম্পু করার এক ঘণ্টা আগে ম্যাসাজ করুন। এক্ষেত্ৰ নারিকেল তেল, জলপাইয়ের তেল, বাদাম তেল, ভেষজ তেল ইত্যাদি বেশ উপযোগী। তেল আপনার মাথার ত্বক ও চুলকে পর্যাপ্ত আর্দ্রতা প্রদান করবে যা চুলের আগা ফাঁটা প্রতিরোধ করে।

৮। যারা চুল শুকানোর জন্য হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করে থাকেন তারা এটি থেকে বিরত থাকুন। ড্রায়ারের গরম বাতাস চুলকে আরও ভঙ্গুর ও রুক্ষ করে ফেলে। অনুষ্ঠান বা পার্টিতে চুল সাজানোর প্রয়োজন হলে ড্রায়ারের ঠান্ডা বাতাস ব্যবহার করুন। এতে সময় একটু বেশি লাগলেও চুলের ক্ষতি হবে না।

৯। এই শীতে খুশকির সমস্যা থেকে বাঁচতে দু’-তিন টেবল চামচ অ্যালোভেরা জেলের সঙ্গে এক টেবল চামচ নারকেল তেল বা অলিভ অয়েল এবং কয়েক ফোঁটা পাতিলেবুর রস মিশিয়ে চুলে এবং মাথার ত্বকে লাগাতে পারেন।

RCN24BD-