গৃহবধূ কে ধর্ষণের চেষ্টা মামলা হলেও গ্রেফতার হয়নি মূল আসামী

- Advertisement -
- Advertisement -

দক্ষিণ পানা পুকুর চৌধুরীরহাট এলাকার বিশিষ্ট্য মাদক ও সুদ ব্যবসায়ী মোঃ আশরাফুল ইসলাম ৪০ (গং) এর বিরুদ্ধে একজন অসহায় গৃহবধূ কে জোর পূর্বক ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের।

আসামী কে দূরত গ্রেফতারের দাবি এলাকাবাসীর। গত শনিবার (০৮ আগষ্ট ২০২০) রাত আনুমানিক ১০ ঘটিকার সময় মোছাঃ লাকি বেগম (২৭) কে নিজ বাসায় একা ফাকা পেয়ে একই এলাকার বাসিন্দা মোঃ আফজাল হোসেন এর পুত্র এলাকায় চরিত্রহীন বিশিষ্ট্য মাদক ও সুদ ব্যবসায়ী নামে পরিচিত মোঃ আশরাফুল ইসলাম (৪০) গং দলবদ্ধ হয়ে গৃহবধূর শোয়ার ঘরে ঠুকে জোর পূর্বক গনধর্ষনের চেষ্টা চালায়। এক পর্যায়ে আশরাফুল লাকি বেগমের শাড়ি ছায়া ব্লাউজ খুলে বিছানায় শোয়ায় জোর পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে। গৃহবধূ দীর্ঘক্ষন নিজের ইজ্জত বাজাতে দস্তাদস্তি করে। একপর্যায়ে আশপাশের লোকজন চিৎকারে ছুটে আসলে আসামী গনের হাতে থাকা ধারালো ছুরি দিয়ে লাকি বেগম কে হত্যার জন্য বাম হাতের ঘারের নিচে কাটিয়া রক্তাক্ত বিদ্ধস্ত অবস্থায় রেখে আসামী গন পালিয়ে যাওয়ার সময় গণধোলাইয়ের শিকার হয়ে পালিয়ে যায়।
ঘটনা স্থলে আশপাশের লোকজন ঘরে ঠুকে রক্তাত্ব ও বিদ্ধস্ত অবস্থায় উদ্ধার করে লাকি বেগম কে।
তার স্বামী সবুজ মিয়া স্ত্রী কে বাঁচাতে দূরত রংপুর সরকারী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৬ নং ওয়ার্ডে রাত আনুমানিক ১২ টার দিকে ভর্তি করানো হয়।
তার স্ত্রীর যখম গুরুত্বর হওয়ায় প্রচুর রক্ত ক্ষরন হয় এবং ১৫ টি শেলাই ঘারে দেওয়া হয়। পরর্বতীতে লাকি বেগম কে জিগ্যেস করলে তিনি জানান তাকে প্রায় সময় রাস্তাঘাটে, মোবাইলে আশরাফুল কু প্রস্তাব ও খারাপ খারাপ কথা বলতো ও প্রলোভন দেখাতো। কিন্ত আশরাফুলের কু প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আগে থেকে ওত পেতে থাকা চরিত্র হীন আশরাফুল লাকি বেগম কে নিজ বাসার থাকার ঘরে কয়েক জন বক্ষাটেকে নিয়ে
ঠুকে একা পেয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে।
হাসপাতালে ভর্তি থাকাকালীন আশরাফুল গুন্ডা বাহিনী ও ক্ষমতার অপব্যবহার ও কালো টাকার বিনিময়ে লাকি বেগম কে চিকিৎসা শেষ না হওয়ার আগেই হাসপাতাল থেকে জোর পূর্বক রিলিজ দিয়ে বের করে দেওয়া হয় ১১/০৮/২০২০ খ্রিঃ।
তারপর লাকি বেগমের স্বামী সবুজ মিয়া ১৩-০৮-২০২০ খ্রিঃ বাদি হয়ে গংঙ্গাচড়া মডেল থানা,রংপুর বরাবর অফিসার ইনচার্জ এর কাছে ন্যায় বিচার ও জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে একটি এজাহার দাখিল করে।


পরর্বতীতে ঘটনা তদন্ত সাপেক্ষে ১৪/০৮/২০২০খ্রিঃ তারিখে মামলা নং ১০/১২৯ ধারা ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ০৩ এর ৯(৪) (খ) তৎসহ ১৪৩/৪৪৮/৩২৩/৩২৪/৩২৬/৩০৭/৫০৬/ পেনাল কোড,
ধর্ষনের চেষ্টা তৎসহ বে-আইনি জনতায় দলব্ধ হইয়া অনধিকার প্রবেশ পূর্বক মারপিট করিয়া সাধারন ও হত্যার উদ্দেশ্যে গরুতর জখম সহ ভয়ভিতি প্রদর্শনের অপরাধে ১ নং আসামী আশরাফুল সহ সাত জনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে।


আসামি গন এক নাম্বার আসামি বাদে বাকি সবাই
জামিনে মুক্তি পেয়ে অসহায় হতদরিদ্র গৃহবধূ ও তার স্বামী কে মামলা তুলে নেওয়ার হুমকি অব্যাহত রেখেছে এবং এক নং আশামী বুক ফুলায় জামিন না নিয়ে প্রকাশ্যে এলাকায় ঘুরে বেরাচ্ছে দলবদ্ধ হয়ে। এবং যদি আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নেওয়া না হয় তাহলে তাদের কে মিথ্যা মামলায় ফাঁসাবে বলে হুমকি অব্যাহত রেখেছে।

একপর্যায়ে ঘটনাটি স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ মিমাংসার জন্য উভয় পক্ষ কে ডেকে ছিলেন কিন্তু বিবাদী আসামি গন বিচারে গিয়ে লাঠি সোটা দিয়ে গ্রামের লোকজন কে হেয় প্রতিপন্ন করে। পুলিশের নাকের ডগায় ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধ করার চেষ্টা করে ১ নং আসামি আশরাফুল ইসলাম প্রকাশ্যে ঘুরে বেরাচ্ছে কিসের শক্তিতে।
অতি দূরত্ব আশরাফুল ইসলাম কে গ্রেফতার করার দাবি জানিয়েছেন লাকি বেগমের পরিবার ও এলাকাবাসী।
অন্যথায় ন্যায় বিচার পেতে প্রধানমন্ত্রী ও সরাষ্ট্র মন্ত্রীর কাছে সারকলিপি প্রদান ও সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে মানববন্ধন কর্মসূচি নিবে এলাকা বাসি।
ইতিমধ্যে আশরাফুল গং এর বিরুদ্ধে মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে।
মামলার বরাত দিয়ে জানা গেছে, ভুক্তভোগীর স্বামী সবুজ মিয়া থানায় আসামিদের বিরুদ্ধে ১৩/০৮/২০২০ তারিখে মামলা করায় সেই দিন এ এস আই আরিফ রাত আনুমানিক ১১ টার দিকে সবুজ কে মামলার বিষয় কথা বলার জন্য সুকৌশলে ডেকে পুলিশ কাস্টরি করে রাতারাতি মিথ্যা মামলা সাজিয়ে ১৪/০৮/২০২০ খ্রিঃ তারিখে কোর্টে চালান করে। মিথ্যা মামলায় অভিযুক্ত করেন সবুজ মিয়া পরিবারের সকলের নামে মামলা দায়ের করে। বাদী সবুজ মিয়া জামিনে মুক্তি পেয়ে বাসায় আসলে তাকে মেরে ফেলবে আরো মিথ্যা মামলায় তার পরিবারের সবাইকে ফাঁসাবে বলে হুমকি অব্যাহত রয়েছে।
বর্তমানে লাকি বেগম ও তার স্বামী সবুজ মিয়া পরিবার সহ নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন।

এদিকে আসামি আশরাফুল ইসলাম কে অবিলম্বে দূরত্ব গ্রেফতার করে উপযুক্ত শাস্তি প্রদান করার দাবি এলাকাবাসী জোরালো ভাবে জানিয়েছেন।


বিষয়টি সুষ্ঠ নিরেপক্ষ তদন্তের মাধ্যমে মিথ্যা মামলায় হয়রানি থেকে রক্ষা পেতে এবং ধর্ষণের চেষ্টা মামলায় অভিযুক্ত আসামি আশরাফুল ইসলাম গং কে দূরত গ্রেফতারের জন্যে রংপুর জেলা পুলিশ সুপার মহোদয় বিপ্লব সরকারের একান্ত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন অসহায় হতদরিদ্র লাকি বেগম ও তার পরিবার।


আরসিএন ২৪বিডি.কম/ ৭ সেপ্টেম্বর ২০২০

- Advertisement -
Latest news
- Advertisement -
Related news
- Advertisement -
ভুট্টি গরু: সাভারে মাত্র কুড়ি ইঞ্চি উচ্চতা আর ২৬ কেজি ওজনের ‘রানী’ লাউয়ের যত গুন্ তাজহাট জমিদার বাড়ি