ইসলাম একটি একেশ্বরবাদী ধর্ম; যা আল্লাহরবানী (আল কোরআন) এবং নবী মুহাম্মাদ(সাঃ) -এর প্রদত্ত শিক্ষা পদ্ধতি, জীবনাদর্শ (সুন্নাহ এবং হাদিস নামে লিপিবদ্ধ) দ্বারা পরিচালিত। ইসলামের অনুসারীরা মুহাম্মদ(সাঃ)-কে শেষ নবী বলে মনে করেন।

ইসলাম الإسلام‎ শব্দটি এসেছে আরবি س-ل-م শব্দটি হতে; যার দু’টি অর্থঃ #শান্তি #আত্মসমর্পণ করা। অন্য বসবে বলা যায়, ইসলাম হলো শান্তি স্থাপনের উদ্দেশ্যে এক ও অদ্বিতীয় আল্লাহ তা’আলার-এর কাছে আত্মসমর্পণ করা।

অনেকের মতে, এই ধর্মের প্রবর্তক হলেন মুহাম্মদ (সাঃ)। তবে ইসলাম ধর্মের অনুসারী মুসলমানদের মতে, এই ধর্মের প্রবর্তক নন মুহাম্মদ (সাঃ), বরং আল্লাহর তা’আলার পক্ষ থেকে প্রেরিত সর্বশেষ ও চূড়ান্ত রাসূল বা পয়গম্বর। খ্রিষ্টীয় ৭তম শতকে মুহাম্মদ (সাঃ) ইসলামের প্রসারে কাজ করেন। ”আল কুরআন” হল পবিত্র ইসলাম ধর্মের মূল ধর্মগ্রন্থ। মুসলমান বা মুসলিম বলা হয় ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসীদের এবং যারা মন থেকে মানে তাদের।

কিন্ত আল-কোরআনের মতে কেবল মাত্র ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী হলেই তাকে “মুসলিম” বলা যাবে না। দুনিয়ার যে কোন ধর্মের, বর্ণের,গোত্রের মানুষই হোক, যারা এই ধর্মে নিজেকে ১০০ ভাগ সমর্পন করতে পারবেন এবং সেই অনুযায়ী কালযাপন করতে পারে, কেবল তাদেরকেই বলা হবে “মুসলিম”। সূত্রঃ সূরা বাকারাহ; আয়াত ২০৮)। মুসলমানরা বিশ্বাস করেন আল কোরআন আল্লাহর তা’আলার বাণী এবং এটি তার দ্বারা ফেরেসতা জীব্রাইল(আঃ)-এর মাধ্যমে মুহাম্মদ (সাঃ)-এর নিকট প্রেরিত বলে। তাদের বিশ্বাস অনুসারে মুহাম্মদ (সাঃ)শেষ নবী। মুসলমানরা বিশ্বাস করে যে ইসলাম হচ্ছে একটি নিভুল, পরিপূর্ণ ও সার্বজনীন ধর্ম, যা এর আগে অনেক নবী ও রাসুল-এর প্রতি নাযিল হয়েছিল। মুসলমানরা আরও বিশ্বাস করে যে, আল-কুরআন হচ্ছে আল্লাহ তা’আলার পক্ষ হতে প্রেরিত সর্বশেষ জীবন বিধান।

মুসলমানরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে মৃত্যুর পরে আরেকটি জীবন আছে। এই দিনটিকে হাশরের দিন বলা হয় এবং এই দিনে পাপ পূণ্যের ভিত্তিতে বেহেশত বা দোযখে পাঠানো হবে।

আল্লাহর পক্ষ থেকে নির্ধারিত মুসলমানরা বিশ্বাস করে ভাগ্যের ভাল-মন্দ সবকিছু ।সারা বিশ্বে মুসলমানের সংখ্যা ১.৮ বিলিয়ন (আনুমানিক) এবং পৃথিবীর প্রধান ধর্মাবলম্বী গোষ্ঠীসমূহ ইসলাম । এবং ২য় বৃহত্তম ধর্মাবলম্বী গোষ্ঠী। মুহাম্মদ(সাঃ)ও তার উত্তরসূরীদের প্রচার ও যুদ্ধ জয়ের ফলশ্রুতিতে ইসলাম ধর্মের দ্রুত বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে সারা বিশ্ব জুড়ে,যেমন : দক্ষিণ এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আফ্রিকা, পশ্চিম আফ্রিকা, পূর্ব আফ্রিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মধ্য এশিয়া, পূর্ব ইউরোপে মুসলমানরা বাস করেন। আরবে এ ধর্মের গোড়াপত্তন হলেও অধিকাংশ মুসলমান আরবের বাহিরের। মোট মুসলমান জনসংখ্যার শতকরা মাত্র ২০ বিশ ভাগ আরবে বাস করে।

ইসলাম কী

“হে মুহাম্মাদ (সাঃ) বল, আমার রব নিঃসন্দেহে আমাকে সঠিক নির্ভূল পথ দেখাইয়া দিয়াছেন।সম্পূর্ণ ও সর্বতভাবে নির্ভূল দ্বীন, তাহাতে বক্রতার কোন স্থান নাই। ইহা ইব্রাহীমের অবলম্বিত পথ ও পন্থা, যাহা সে ঐকান্তিক নিষ্ঠা ও একমূখীতার সহিৎ গ্রহণ করেছিল এবং সে মুসলিমদের মধ্যে ছিল। বল, আমার নামায, আমার সর্বপ্রকার ইবাদত অনুষ্ঠান সমুহ, আমার জীবন ও আমার মৃত্যু সবকিছুই সারা জাহানের রব আল্লাহর’ই জন্য।” (সূরা আল-আনআম ১৬১-১৬২)
ইসলামের সংজ্ঞা এ ভাবে বলা যায় , ইসলাম الإسلام‎ শব্দটি এসেছে আরবি س-ل-م শব্দটি হতে; যার দু’টি অর্থঃ #শান্তি #আত্মসমর্পণ করা। অন্য বসবে বলা যায়, ইসলাম হলো শান্তি স্থাপনের উদ্দেশ্যে এক ও অদ্বিতীয় আল্লাহ তা’আলার-এর কাছে আত্মসমর্পণ করা।

ইসলাম ধর্ম কি
ইসলাম হল শান্তির ধর্ম। ইসলাম ধর্ম হলো মানবজাতির উন্নয়নের গাইড লাইন। ইসলাম মানুষকে কখনো সহিংস হতে বলে না কিন্ত অন্যায় এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হতে বলে।

ইসলাম ধর্মের ইতিহাস


ইসলামের ইতিহাস বলতে ইসলাম ধর্মের উদ্ভবের পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সময়কাল পঞ্জী অনুসারে এর বিভিন্ন ঘটনাসমূহকে বুঝানো হয়। বেশ কয়েকজন ঐতিহাসিকের মতে, তখনকার সময় একজন নবীর আগমন এবং তার সফলতা লাভের জন্য আরব দেশ যথেষ্ট উপযুক্ত স্থান ছিল।

ইসলামী আন্দোলনের জন্যও তা একটি উর্বর ভূমি হিসেবে পরিগণিত হতে পারে। এজন্যই সেখানে ইসলামের বিজয় সম্ভবপর হয়েছিল। তাদের মতামত অনুসারে ইসলামের ব্যাপক প্রসার সম্ভব হয়েছিল নিচে উল্লিখিত কারণে,
এটি সুস্পষ্ট যে, কোন বিজয়ের জন্য কোন একজন ব্যক্তির জীবনই যথেষ্ট নয় বরং প্রয়োজন একদল যোগ্য লোকের একটি বাহিনী তৈরি যারা সেই প্রচার ও প্রসার কাজ আজীন চালিয়ে যাবেন। আর এ ধরনের কাজ আঞ্জাম দেয়ার ক্ষমতা আরব উপদ্বীপের অধীবাসীদের মাঝে তখন পূর্ণ মাত্রায়ই বিরাজমান ছিল। কিন্তু সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য যে বিষয়টি তা হল আরব বিশ্বের মানব অধ্যুসিত এলাকার প্রায় কেন্দ্রে অবস্থিত ছিল এবং এর সাথে বহির্বিশ্বের যোগাযোগ ব্যবস্থা সবচেয়ে উন্নত ছিল। মোহাম্মদের (সাঃ) জন্মের আগেই আরব বণিকরা সারা বিশ্বে বাণিজ্য উপলক্ষে ঘুরে বেড়াতো।

এজন্যই মূলত নবীর (সাঃ) হাতে ইসলামের বিজয় সাধিত হওয়া সম্ভবপর হয়েছিল।
আরেকটি গুরুত্ব ছিল আরবি ভাষার। বিশ্বের অন্য কোন ভাষী সেই সময়ে এতটা উৎকর্ষ লাভ করেনি যা চিরকাল অপরিবর্তিত রাখা সম্ভবপর। তদুপরি সেই সময়টা ছিল আরবি ভাষার চরম উৎকর্ষের কাল।

" তারাবি নামাজ আদায় "


আরবরা কোন রাজত্বের অধীনে শৃঙ্খলিত ছিলনা। অন্য জাতির গোলামীর কারণে মানুষের মুক্তচিন্তা ও তদসংশ্লিষ্ট যে সকল গুণাবলীর অপমৃত্যু ঘটে তাও প্রশ্নাতীত। আরবের চারদিকে পারস্য ও রোমের মত দুইটি পরাশক্তির রাজত্ব বিস্তৃত থাকলেও কেউ তাদেরকে পরাজিত করতে পারেনি। এতেই আরবদের শৌর্য্য বীর্যের পরিচয় পাওয়া যায় যা ইসলামী আন্দোলনের আরেকটি অত্যাবশ্যকীয় শর্ত।
আরবদের স্মৃতিশক্তি অত্যন্ত প্রখর ছিল।

"গুগল নিউজ এ রংপুর ক্রাইম নিউজের সর্বশেষ খবর পড়তে ক্লিক করুন"
গুগল নিউজ এ রংপুর ক্রাইম নিউজের সর্বশেষ খবর পড়তে ক্লিক করুন।

ইসলাম ধর্মের ভুল


সুরুহ আল আহিয়াব অধ্যায় ৩৩ আয়াত ৫৬ থেকে জানা যায়। মুহাম্মদ(সাঃ)একজন আদশ মানব। তিনি সর্বশেষ নবী রাসূল।
এরকম এমন অনেক বিষয় আছে যা বিধর্মী রা বলে ইসলামের ভুল আছে কিন্ত আসলে ইসলামে কোন ভুল নাই।

ইসলাম শিক্ষা
ইসলামের শিক্ষা আমাদের জীবনের জন্য একটা গাইট লাইন। জীবনের সব ক্ষেত্রেই ইসলামের দিক নিদেশনায় চলা আমাদের দরকার জীবনে ভালোভাবে বাসতে চাইলে ইসলামের শিক্ষা দরকার।

আরও পড়ুনঃ

রংপুর ক্রাইম নিউজ : সকল খবর পড়তে ক্লিক করুন

অনলাইন আপডেট :৩০ মে,২০২১
আরসিএন২৪বিডি.কম